গোবিন্দগঞ্জে চাঁদা আদায়ের সময় ট্রাক চাপায় যুবক নিহত

|


গাইবান্ধা প্রতিনিধি : 

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার নামে সড়কে যানবাহন থেকে চাঁদা আদায়ের সময় ট্রাক চাপায় ওয়াসিম মিয়া (১৯) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ জুলাই) দিবাগত রাত দেড়টার ১টার দিকে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের গোবিন্দগঞ্জ পৌর শহরের সোনালী ব্যাংক সংলগ্ন এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটনা ঘটে।
নিহত ওয়াসিম মিয়া গোবিন্দগঞ্জ পৌর শহরের বুজরুক বোয়ালিয়া গ্রামের এন্তাজ আলীর ছেলে।


স্থানীয়রা জানায়, ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের গোবিন্দগঞ্জ পৌর শহরের সোনালী ব্যাংক সংলগ্ন এলাকায় রাত দেড়টার দিকে লাঠি হাতে ওয়াসিমসহ কয়েকজন যুবক পৌরসভার নামে বিভিন্ন যানবাহনে চাঁদা উত্তোলন করছিল। একটি ট্রাককে থামানোর জন্য সিগন্যাল দেয় চাঁদা আদায়কারীরা। এসময় তারা ট্রাক চালকের নিকট ৭০ টাকা চাঁদা দাবী করলে চালক তাদের ৫০ টাকা দেন। কিন্তু তারা ৫০ টাকা নিতে অস্বীকৃতি জানালে চালক দ্রুত গতিতে ট্রাক নিয়ে চলে যান। এতে ট্রাকের চাপায় পিষ্ট হয় ওয়াসিম। এক পর্যায়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ওয়াসিমের। পরে খবর পেয়ে পুলিশ এসে তার লাশ উদ্ধার করে। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি আকতারুজ্জামান বলেন, ‘ট্রাক চাপায় ওয়াসিমের মৃত্যু হয়েছে। স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। তবে ওয়াসিম চাঁদা আদায় করছিল কিনা তা জানা যায়নি। তবে ঘাতক ট্রাকটি সনাক্ত ও ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের কেউ বিকেল পর্যন্ত কোন অভিযোগ করেনি’।


এদিকে, দীর্ঘদিন ধরে পৌরসভার নামে রশিদের মাধ্যমে বিন্দগঞ্জ পৌরশহরের বেশ কয়েকটি এলাকায় বিভিন্ন যানবাহন থেকে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। নামেবেনামে শ্রমিক সংগঠনের শ্রমিক ও স্থানীয় যুবকরা গ্রুপ ভিত্তিক এই চাঁদা উত্তোলন করছিলো বলে অভিযোগ স্থানীয়সহ যানবাহন চালকদের।

চাঁদা আদায়ের প্রতিবাদে সম্প্রতি চালকরা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন সুষ্ঠ বিচারের আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেয়া হয়। কিন্তু তারপর থেকে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় চাঁদা উত্তোলনে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠে চিহ্নিত চাঁদা আদায়কারীরা।


তবে পৌরসভার নামে চাঁদা আদায়ের বিষয় জানতে পৌর মেয়র আতাউর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এমনকি মোবাইল ফোনে কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। 









Leave a reply