ফটোশপের মাধ্যমে বিকৃত ছবি ভাইরাল!


গত দুই দিন ধরে বাংলাদেশের অনলাইন জগতে ‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলির মতো দেখতে’ এক তরুণীর কয়েকটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। শীর্ষস্থানীয় প্রায় সব বাংলা পত্রিকার ওয়েবসাইট এবং অনলাইন নিউজ পোর্টালে ছবিগুলো ব্যবহার করে খবর প্রকাশিত হয়েছে। কারো শিরোনাম ছিল, ‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলির চেহারা পেতে তরুণীর কাণ্ড!’ কারো শিরোনাম, ‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলি হতে গিয়ে…’। আবার কেউ শিরোনাম করেছে, ‘জোলি হতে ৫০ বার সার্জারি, তারপর…’। একটি শিরোনাম ছিল, ‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলি হওয়ার চেষ্টায় চেহারা বিকৃত করলো মেয়েটি’।

শিরোনামগুলো থেকেই ঘটনা মোটামুটি স্পষ্ট। তবু একটু বিস্তারিত বলা যাক।

‘ইরানি তরুণী সাহার তাবার হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলির মহাভক্ত। সেই ভক্তি থেকেই নিজের চেহারাকে জোলির মতো বানাতে চেয়েছিলেন তিনি। তাই ৫০ বার সার্জারি করেছেন চেহারায়। ডায়েট করে ওজন কমিয়েছেন প্রায় ৪০ কেজি। কিন্তু এতসব করার পর যা দাঁড়িয়েছে তা রীতিমতো ভয়াবহ। জোলির মতো না হয়ে বাস্তবে তার চেহারা ‘জোলির লাশের মতো’ হয়েছে। অর্থাৎ মারাত্মকভাবে বিকৃত হয়েছে। নিজের বর্তমান অদ্ভুত চেহারার ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেন ১৯ বছর বয়সী সাহার। ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করা এসব ছবি নিয়েই ইন্টারনেটে এখন বইছে ঝড়।’

মূল কথা এতটুকুই। আর এসব কিছু বেলজিয়াম ভিত্তিক একটি অনলাইন পত্রিকার বরাতে জানিয়েছে ব্রিটেনের দ্য সান পত্রিকা। এরপর সান’র বরাতে প্রকাশ হয়েছে বহু দেশের বহু সংবাদমাধ্যমে। সেই সূত্রে বাংলাদেশেও। কোনো কোনো সংবাদমাধ্যম খবরের সূত্র ও সঠিকতা নিয়ে বিদ্যমান অস্পষ্টতার কথা প্রতিবেদনে উল্লেখ করলেও বেশিরভাগ প্রতিবেদনে তেমন কিছু ছিলো না।

অবশ্য ফক্সনিউজ, রাশিয়া টুডে, স্নোপস এর মতো কয়েকটি সংবাদমাধ্যম সাহারের কথিত ছবিগুলোর সঠিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে। বিভিন্ন পন্থায় যাচাই করে রাশিয়া টুডে তাদের এক প্রতিবেদনে জানায়, ছড়িয়ে পড়া ছবিগুলোতে মূলত ফটোশপের মাধ্যমে সাহারের চেহারাকে অতিরঞ্জিতভাবে বিকৃত করা হয়েছে। তবে এই বিকৃতি সাহার নিজে করেছেন, নাকি অন্য কেউ করে ছড়িয়ে দিয়েছে সে বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারেনি সংবাদমাধ্যমটি।

এবং শেষমেশ দ্য সান’ও নতুন আরেক প্রতিবেদনে স্বীকার করে নিয়েছে যে, ছবিগুলোতে সম্পাদনার মাধ্যমে চেহারাকে অতিরঞ্জিতভাবে বিকৃত করা হয়েছে। ‘Zombie’ teen who ‘had 50 surgeries to look like Angelina Jolie’ is accused of photoshopping her pictures’ শিরোনামের নতুন প্রতিবেদনে দ্য সান সামাজিক মাধ্যম ‘রেডিট’ এর কয়েকজন ব্যবহারকারীর ছবিগুলো সংক্রান্ত মন্তব্য তুলে ধরেছেন। ওই ব্যবহারকারীরা বিশ্লেষণ করে দেখিয়েছেন কিভাবে ছবিগুলোতে সম্পাদনা করা হয়েছে। বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন, ছড়িয়ে পড়া ছবিগুলো যে, সম্পাদনাকৃত তার সবচেয়ে বড়ো প্রমাণ হচ্ছে একেকটি ছবিতে চেহারা একেকভাবে এসেছে।

একজন রেডিট ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘আমার মনে হয় মেয়েটি সার্জারি করেছে এটা ঠিক। কিন্তু (এসব ছবিতে) সে কম বেশি মেকআপ আর (সম্পাদনার মাধ্যমে) মাত্রাতিরিক্ত অতিরঞ্জনের আশ্রয় নিয়েছে।’









Leave a reply