ফেরিতে স্কুলছাত্রের মৃত্যু: পুত্র শোকে তিতাসের মা হাসপাতালে

|

স্কুলছাত্র তিতাসের মা সোনামনি ঘোষকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। একমাত্র পুত্রের অকাল মৃত্যুর শোকে কাতর হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় রবিবার রাতে তাকে কালিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

একজন সচিবের জন্য কাঠালবাড়ি ঘাটে ফেরি ৩ ঘণ্টা দেরি করার কারণে নড়াইলের কালিয়ার স্কুলছাত্র তিতাসের মৃত্যু হয়।

তিতাসের বোন তনিষা ঘোষ জানান, তিতাস মারা যাওয়ার পর থেকে তার মা আহার নিদ্রা প্রায় ছেড়ে দিয়েছেন। একদিকে পুত্রশোক অন্য দিকে খাবার না খাওয়া এবং না ঘুমানোর কারণে গত কয়েক দিন ধরে তিনি অসুস্থ ছিলেন। রবিবার বিকাল থেকে তার শরীরের রক্তচাপ কমে তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। রাতেই তাকে কালিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার শরীফ সাহাবুবুর রহমান জানান, মানসিক দুশ্চিন্তা ও আহার নিদ্রার অভাবে তার রক্তচাপ উঠানামা করছে। তবে তিনি এখন ভাল আছেন।

গত ২৪ জুলাই নড়াইলের কালিয়া সরকারি পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র তিতাস সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হলে প্রথমে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করে। পরে একজন সচিবের জন্য ফেরি ছাড়তে দেরি হওয়ায় ফেরিতেই তিতাসের মৃত্যু হয়।

এ ঘটনার তদন্তে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ ও নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি ১ আগস্ট কালিয়াতে এসে তিতাসের পরিবারের সদস্য ও স্বজনদের সাথে দেখা করে কথা বলেছেন।









Leave a reply