‘গোপন কথা’ ফাঁস হওয়ার শঙ্কায় ক্ষুব্ধ ট্রাম্প, প্রকাশক নাছোড়বান্দা

|

একটি বই প্রকাশ নিয়ে তুলকালাম চলছে মার্কিন মুল্লুকে। একদিকে প্রেসিডেন্ট, অন্যদিকে বইটির লেখক-প্রকাশক। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চাচ্ছেন যে কোনো উপায়ে এটির প্রকাশনা বন্ধ করতে। এজন্য আইনি ব্যবস্থা নেয়ারও হুমকি দিয়েছেন। ইতোমধ্যে পাঠিয়েছেন লিগাল নোটিশ। ওদিকে প্রকাশকও নাছোড়বান্দা। তিনি আলোর মুখ দেখাবেনই বহুল আলোচিত বইটিকে। তাই ঘোষণা দিয়েছেন, নির্ধারিত তারিখের কয়েকদিন আগে আজ শুক্রবারই বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করবেন তিনি। সাথে সাথেই খুচরা বাজারে মিলবে এটি।

বইটির নাম ‘Fire and Fury: Inside the Trump White House’. লিখেছেন প্রথিতযশা সাংবাদিক মিশেল ওলফ। হোয়াইট হাউজে দীর্ঘদিনের যাতায়াতের অভিজ্ঞতা থেকে লেখা এ বই; যাতে স্থান পেয়েছে ট্রাম্প ও হোয়াইট হাউজে তার আশেপাশের মানুষদের নিয়ে নানা ঘটনার বর্ণনা।

সম্প্রতি নিউইয়র্ক ম্যাগাজিন নতুন বইটিতে কী আছে তার ওপর রিভিউ প্রকাশ করে। এরপরই শুরু হয় তোলপাড়। রিভিউতে উঠে এসেছে কিছু অজানা তথ্য, যা ট্রাম্পের জন্য শুধু বিব্রতকরই নয়, বরং তার চেয়েও বেশি কিছু। দ্যা গার্ডিয়ান, ওয়াশিংটন পোস্ট, হলিউড রিপোর্টার ইত্যাদি সংবাদমাধ্যমও আলোচনায় মেতেছে বইটি নিয়ে।

ট্রাম্পের ঘনিষ্টজনের সাক্ষাৎকার ভিত্তিক বইটিতে উঠে এসেছে মার্কিন প্রেসিডেন্টের ব্যক্তিগত জীবনে নানা তথ্য। স্থান পেয়েছে তার সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করা তারই প্রশাসনের লোকজনের বক্তব্য। যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন নীতি নিয়ে প্রেসিডেন্টের নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি কেমন তা নিয়েও উঠে এসেছে তথ্য। সবচেয়ে ঝাঁঝালো কথা বলেছেন ট্রাম্পেরই সাবেক উপদেষ্ট স্টিভ ব্যানন। ট্রাম্প টাওয়ারে প্রেসিডেন্টের সাথে রাশিয়ান এক আইনজীবীর বৈঠকের কথা উল্লেখ করে ব্যানন এটিকে ‘রাষ্ট্রদ্রোহমূলক আচরণ’ বলে অভিহিত করেন।

বইয়ের প্রকাশনা বন্ধে ইতোমধ্যে আইনি নোটিশ পাঠিয়ে প্রকাশককে হুঁশিয়ার করার চেষ্টা করেছে হোয়াইট হাউজ। পাশাপাশি হুমকি দেয়া হয়েছে মানহানিকর বক্তব্য থাকার কারণে প্রকাশের বিরুদ্ধে আদালতে যাবেন ট্রাম্পের আইনজীবী। যদিও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, হুমকি দিলেও আদালতে যাওয়ার সম্ভাবনা কম।









Leave a reply