বানরদলের সর্দার বিস্ময় বালক সামর্থ

|

দ্বিগুণ উচ্চতার একপাল বানর নিয়ে ছুটে বেড়াচ্ছে ছোট্ট এক শিশু। শুধু তাই নয়, খাবার ভাগাভাগি করে খাচ্ছে বানরদের সাথে। শিশুটি যখন স্কুলে যায় বানরগুলো তীর্থের কাকের মতো অপেক্ষা করে থাকে, কখন আসবে সামর্থ? হ্যাঁ দুই বছর বয়সী শিশুটির নাম সামর্থ। সামর্থ বাঙ্গারি। অন্যসব শিশুর চেয়ে আলাদা এই শিশুদের বিচিত্র বৈশিষ্ট্য দেখে এলাকার মানুষ তাকে দেখে পুনর্জন্ম নেয়া দেবতা বলে মনে করে।

ভারতের বেঙ্গালুরু শহরের প্রায় ৪০০ কিলোমিটার দূরে আল্লাপুর নামে এক গ্রামে থাকে বিস্ময় বালক সামর্থ। রোজ তাকে দেখা যায়, বাড়ির আঙিনায় বসে বানর বাহিনীর সাথে খাবার ভাগাভাগি করে খেতে। স্কুল থেকে ফিরে ঘরের বাইরে অপেক্ষারত বানরগুলোর সাথে খেয়ে-দেয়ে খেলতে যায় সামর্থ।

সাহসী কিছু বানর আবার এক কাঠি সরেস। সকাল সকাল সামর্থের ঘুম ভাঙাবে বলে তার শয়নকক্ষে ঢুকে পড়ে! রুডইয়ার্ড কিপলিংয়ের বিখ্যাত ‘দ্য জঙ্গল বুক’-এর মোগলির জীবন্ত উদাহরণ যেন সামর্থ বাঙ্গারি।

মুখে কথা ফোটেনি কিন্তু বানরদের অনুকরণে ওস্তাদ সামর্থ। বানরের সাথে তার সখ্যকে স্বাভাবিকভাবেই নিয়েছেন তার পিতামাতা। প্রাণীদের বিশ্বাস করেন উল্লেখ করে জানান, যতক্ষণ ঘরের কাজ সারি, ততক্ষণ তাদের সাথে খেলাধুলা করে ছেলে। বানরগুলো তার দেখাশোনা করে এবং কখনই আঘাত দেয় না।

বানরবন্ধুদের সাথে খেলায় মগ্ন সামর্থ

ঘটনাটি সূত্রপাত ছয় মাস আগে। উঠোনে খেলতে থাকা সামর্থের হাত থেকে খাবার কেড়ে নেয় এদল বানর। আশ্চর্যজনকভাবে সামার্থ একটুও কাঁদেনি, ভয়ও পায়নি। বরং ভেঙচি কাটতে থাকে। এর পর থেকেই তাদের এমন সখ্য গড়ে ওঠে।

এখন বানর বন্ধুদের সাথে সামর্থের খেলা দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ভিড় করে। কেনোই বা করবে না, রিয়েল লাইফ মোগলি ক’জন দেখেছেন!

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply