এরশাদের মৃত্যুর গুজব ছড়াবেন না: জিএম কাদের

|

‘সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত আছে। তিনি এখনো অক্সিজেন সাপোর্টে আছেন। ডাক্তাররা বলেছিলেন তার অবস্থার অবনতি হতে পারে। কিন্তু সেটি যেহেতু হয় নাই । আর এটিকে ডাক্তাররা শুভ লক্ষণ হিসেবে মনে করছেন। আর এটি নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে নানা রকম গুজবের সৃষ্টি হয়েছে। আপনার বিভ্রান্ত হবেন না। উনি ধীরে ধীরে সুস্থ্য হয়ে উঠছেন।

সোমবার (১ জুলাই) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের।

তিনি বলেন, গতকাল ফুসফুসের ইনফেকশন যতটুকু দেখা গিয়েছিল, আজকে সকালে তা একটু কমে গেছে। আর তার শ্বাস কষ্টের সমস্যাটিও কমের দিকে। আগে অক্সিজেন সাপোর্টের মাধ্যসে শ্বাস-প্রশাসের ব্যবস্থা করা হতো কিন্তু তা এখন কমিয়ে আনা হয়েছে। ২ ঘণ্টা অক্সিজেন সাপোর্ট আর বাকি ২ ঘণ্টা স্বাভাবিক অক্সিজেন দেয়া হচ্ছে। আর এই অবস্থা চলতে থাকলে তিনি ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে উঠবেন বলে জানিয়েছেন ডাক্তাররা।

তিনি আরও বলেন, কিডনিতে যে সমস্যা ছিলো তা আবারও দেখা দিয়েছে। এখন ডাক্তাররা সে দিকেই দৃষ্টি রাখছেন। এই হিসেবে সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করলে ডাক্তারদের ভাষায় উনার অবস্থা অপরিবর্তিত রয়েছে। আস্তে আস্তে উনার অবস্থা উন্নতি হবে বলে আশা করা যায়। তবে এটা বুঝতে হবে উনি শঙ্কামুক্ত নয়। উনার বয়স এবং শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে সকল দিকে পর্যবেক্ষণ করছেন। আমরা আশাবাদি উনি তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠবেন।

জিএম কাদের বলেন, আমি, আত্মীয় স্বজন এবং আমাদের দলের পক্ষ থেকে দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই যেন উনি দ্রুত সৃস্থ হয়ে উঠেন এবং স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন। দেশ ও জাতির সেবায় যেন আবার নিজেকে নিয়োজিত করতে পারেন।

২৬ জুন এরশাদের শারীরিক অবস্থার হঠাৎ অবনতি ঘটলে তাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়। সেখানে তার বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে কিছু সংক্রমণের চিকিৎসা চলছে।

সাবেক রাষ্ট্রপতির ফুসফুসে পানি জমেছে, যা বের করা জরুরি। তবে তার ফুসফুসের পানি বের করলে শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি ঘটতে পারে।

এর পরও চিকিৎসকরা তার ফুসফুস থেকে পানি অপসারণ করার প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন বলে জানান সাবেক এ রাষ্ট্রপতির পরিবারের সদস্যরা।









Leave a reply