১০০ কোটি ডলার মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়া পেলেন সৌদি প্রিন্স!

|

কথিত দুর্নীতি বিরোধী অভিযান চালাচ্ছে আপাদমস্তক দুর্নীতিতে ডুবে থাকা সৌদি সরকার। দুর্নীতির অভিযোগ তুলে আটক করা হয়েছে রাজপুত্র, মন্ত্রী, সরকারি কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীসহ দুই শতাধিক ব্যক্তিকে। কিন্তু অদ্ভুত বিষয়টি হল, আইনি প্রক্রিয়ায় তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত ও বিচার না করে ‘ঘুষ’ আদায়ে চালানো হচ্ছে দরকষাকষি!

ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান সম্প্রতি ঘোষণা দিয়েছিলেন, যারা সরকারের চাহিদামতো মুক্তিপণ দেবে তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হবে। ঘোষণা অনুযায়ী ১০০ কোটি ডলার (প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকা) মুক্তিপণ দিয়ে অবশেষে মুক্তি পেয়েছেন প্রিন্স মিতয়েব বিন আব্দুল্লাহ।

সরকারি সূত্রের বরাতে এএফপি জানিয়েছে, গতকাল মঙ্গলবার মিতয়েবকে ছেড়ে দেয়া হয়। ক্রাউন প্রিন্স বিন সালমানের সাথে ‘গ্রহণযোগ্য সমঝোতায়’ পৌঁছনোর পর মিতয়েব রেহাই পান।

‘দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন’ মিতয়েবের কাছ থেকে এমন স্বীকারোক্তিও আদায় করিয়ে নেয়া হয়েছে। তবে মিতয়েবের অফিস থেকে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

এর আগে রাজপরিবার ও প্রিন্স মিতয়েবের পরিচিতরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দেন, তিনি এখন রিয়াদে নিজের বাসায় রয়েছেন। তবে কিভাবে ছাড়া পেয়েছেন ওই পোস্টগুলোতে তা উল্লেখ করা হয়নি।

রয়টার্স জানিয়েছে, মিতয়েবের মতোই আরো অন্তত তিনজনের সঙ্গে সমঝোতায় পৌঁছেছে সৌদি কর্তৃপক্ষ।

গত ৪ নভেম্বর সৌদিতে দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে ১১ জন প্রিন্সসহ বর্তমান ও সাবেক বেশ কয়েকজন মন্ত্রীকে আটক করা হয়। পরে এই আটকাভিযানের দুই শতাধিক ব্যক্তিকে বন্দী করা হয়। ওই অভিযানেই আটক হন প্রিন্স মিতয়েব। আটক হওয়ার আগে সৌদি ন্যাশনাল গার্ডের প্রধান ছিলেন তিনি। সাবেক বাদশা আব্দুল্লাহর এই ছেলেকে একসময় সিংহাসনের অন্যতম প্রতিযোগী হিসেবে দেখা হতো।









Leave a reply