পোপকে নিয়ে বিভ্রান্তিকর ভিডিও


পোপ ফ্রান্সিসকে নিয়ে বিভ্রান্তিকর একটি পুরোনো ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে নতুন করে অনেকে শেয়ার করছেন। এমনকি দুয়েকটি বাংলা নিউজ পোর্টালে ‘বারে উদ্দাম নাচলেন পোপ, ভিডিও ভাইরাল!’ শিরোনামে প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়েছে। তবে অনলাইনে ভিডিওটির সূত্র অনুসন্ধান এবং সেটির ফুটেজ বিশ্লেষণে এর সাথে পোপকে সংশ্লিষ্ট করার বিষয়টিকে বিভ্রান্তিকর মনে হয়েছে।

‘POPE FRANCIS DANCE GOES VIRAL ON SOCIAL MEDIA’ ইংরেজি ক্যাপিটাল লেটারের শিরোনামে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে একটি বারে কয়েকটি যুগল নাচছেন। এর মধ্যে এক যুগলের পুরুষ সঙ্গীটির গায়ে পোপের মতো পোশাক রয়েছে।

‘Lokot media’ নামের একটি ইউটিউব একাউন্টে ভিডিওটি আপলোড করা হয় গত ১৯ নভেম্বর। শিরোনামে এটিকে ‘পোপের নাচের’ দাবি করা হলেও ভিডিওর বিবরণীতে কোনো তথ্য নেই। এটি কোথায়, এবং কবে ধারণ করা কিছুই জানার উপায় নেই। ভিডিওটি আপলোড দেয়া ইউটিউব একাউন্টির সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা সাকুল্যে ৬২৮। গত দুই সপ্তাহে ভিডিওটি দেখা হয়েছে আড়াইশোবারের কিছু বেশি বার।

এর বাইরে একই ভিডিও পাওয়া গেছে Grace Kelly নামের আরও একটি একাউন্টে। ‘Dance: A Pope – Pope Francis lookalike during Haloween in dancing mood-le Pape François en mode danse’. এই পুরোটুকুই ভিডিওটির শিরোনাম। ইংরেজি ও ফ্রেঞ্চ ভাষা মিলিয়ে করা শিরোনামের অর্থ হচ্ছে, ‘নাচের মুডে হ্যালোয়ীন উৎসবের সময় পোপ ফ্রান্সিসের মতো দেখতে এক ব্যক্তি’।

আগের একাউন্টে আপলোডের ১১ দিন আগে (৮ নভেম্বর) এই একাউন্টে ভিডিওটি আপলোড করা হয়েছে। এখানে ভিডিওর বিবরণীতে লেখা হয়েছে, ‘A lookalike of the Pope of the Catholic Church- the Pope Francis during Haloween Festival in dancing mood- le pape François en mode danse’. অর্থাৎ, শিরোনামের কথাগুলোকেই এখানে লেখা হয়েছে। এই একাউন্টে ভিডিওটি প্রায় ১৩ হাজার বার দেখা হয়েছে।

এর বাইরে ভিডিওটির আর কোনো সূত্র পাওয়া যায়নি অনলাইনে।

প্রথমত, দু’টি অনির্ভরযোগ্য ইউটিউব একাউন্ট ছাড়া কোথাও ভিডিওটি পাওয়া যায়নি। এর মধ্যে দু’টিতে দুই ধরণের দাবি করা হচ্ছে (একটিতে বলা হচ্ছে পোপ, অন্যটিতে ‘পোপের মতো দেখতে এক ব্যক্তি’)। কোনো একাউন্টেই নাচের অনুষ্ঠানের স্থান-কাল কিছুরই উল্লেখ নেই, যার সূত্র ধরে এটিকে আরও যাচাই করা যাবে।

দ্বিতীয়ত, পোপের পোশাক পরা ব্যক্তিটির শারিরীক বাচনভঙ্গি (বডি ল্যাঙ্গুয়েজ) খেয়াল করলেই স্পষ্ট বুঝা যায়, এটি কোনো ৮০-উর্ধ্ব ব্যক্তির নাচ নয়। পোপ ফ্রান্সিসের বর্তমান বয়স ৮০। তিনি দায়িত্ব নিয়েছেন তিন বছর আগে; ৭৭ বছর বয়সে। যদি ভিডিওটিকে তিন বছর আগের বলেও ধরে নেয়া হয়, তাহলে নাচনেওয়ালা ব্যক্তিটির বয়স ৭৭। কিন্তু ভিডিওতে ওই ব্যক্তিকে যেভাবে একজন পাক্কা ড্যান্সারের মতো মিউজিকের সাথে তাল মিলিয়ে দ্রুত গতিতে শরীর নাড়াতে দেখা যাচ্ছে, তা ৭৭ বছর বয়সী কোনো মানুষের পক্ষে অসম্ভব। এছাড়া ভিডিওতে দেখা যাওয়া ব্যক্তির চেহারার সাথে পোপের চেহারার কোনো মিল পরিলক্ষিত হয়নি।

তৃতীয়ত, পোপ এভাবে কোনো বারে গিয়ে নাচে অংশ নিলে এবং সত্যিই সেটির ভিডিও প্রকাশিত হলে তা নিয়ে দুনিয়ার কোনো না কোনো সংবাদমাধ্যমে গত এক মাসে অন্তত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হতো।

চতুর্থত, পোপের মতো ব্যক্তির দৈনিক প্রতিটি কাজ নির্দিষ্ট সূচি মেনে হয়ে থাকে। সেখানে দৈনন্দিন সূচির বাইরে গিয়ে কোনো ড্যান্স বারে আলো আধাঁরির নিচে তরুণীদের সাথে নাচে অংশ নেয়া শুধু কল্পনাতেই সম্ভব! এবং এভাবে কল্পনার আশ্রয় নিয়ে একজন সম্মানিত ধর্মীয় নেতাকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপন করা অবশ্যই নিন্দনীয়।

ভিডিওটি ফেসবুকে শেয়ার করে ব্যঙ্গাত্মক মন্তব্য করছেন অনেক ব্যবহারকারী









Leave a reply