নেচে নেচে ক্লাস গান গেয়ে পড়া

|

তিনি নাচেন। তিনি গান গান। নাচতে নাচতে গাইতে গাইতেই বাচ্চাদের পড়ান। হাতের মুদ্রায়, কোমরের মোচড়ে, পায়ের স্টেপে ঘুরেফিরে, নেচে-গেয়েই চলে ক্লাস। পড়ার বইয়ের ভাষা বদলে যায় গানের কলিতে। তাই গান গেয়েই ঝটাপট পড়া মুখস্থ করে নেয় কচিকাঁচারা। ওড়িশার এই স্কুল শিক্ষক যেন বলিউড ছবির সেই নিকুম্ভ স্যার! হিন্দুস্তান টাইমস।

প্রফুল্ল কুমার পাথি। ওড়িশার কোরাপুট জেলার লামটাপুট প্রাইমারি স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। পড়ুয়াদের প্রিয় ‘ডান্সিং স্যার’।

‘তারে জমিন পার’ ছবির আমির খান ওরফে নিকুম্ভ স্যারের মতোই ছাত্র পড়ানোর অভিনব কায়দা এই ‘ডান্সিং স্যার’-এর। যে কোনো বিষয়ের বই হাতে নিয়েই চটপট মনে মনে গান ভেঁজে নেন। বাচ্চাদের ভোলানোর কায়দায় সেই গানের কথা ধরেই চলে পড়ানো। সেই সঙ্গে নাচ। স্টেপ অবশ্য ঠিক করে দেন শিক্ষকই। তাকে দেখে দেখেই নাচ তুলে নেয় বাচ্চারা।

হঠাৎ এমন পদ্ধতিতে পড়ানো কেন প্রশ্নের জবাবে পাথি স্যার বলেন, ‘প্রত্যন্ত এলাকার এই স্কুলগুলোতে বাচ্চারা এমনিতেই আসতে চায় না। মিড-ডে মিলের লোভে হাতে গোনা যে কয়েকজন আসে, তারাও ঠিক করে পড়তে চায় না। ক্লাসে কথা বলে বা ঘুমিয়ে পড়ে। বাচ্চাদের পড়াশোনার প্রতি আগ্রহ তৈরির জন্যই এই চেষ্টা।’

২০০৮ সাল থেকে লামটাপুট স্কুলে শিক্ষকতা করছেন প্রফুল্ল কুমার পাথি। সরকারের সর্বশিক্ষা অভিযানের তিনি অন্যতম প্রচারকও বটে। গ্রামে গ্রামে, প্রত্যন্ত এলাকায় শিক্ষা ও স্কুলে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তার কথা মানুষজনকে বোঝান তিনি। ৫৬ বছরের শিক্ষকের মুখে হাসি সবসময় লেগে রয়েছে। বলেন, ‘পড়াশোনার মধ্যে আনন্দ খুঁজে না পেলে বাচ্চারা স্কুলেই আসতে চাইবে না। পড়াশোনা বোঝা নয়, এটাই বাচ্চাদের বোঝাতে চাই।’

পাথি স্যারের প্রশংসায় পঞ্চমুখ সোশ্যাল মিডিয়াও। কেউ বলেছেন, ‘স্যার আপনি মহান। আপনার মতোই শিক্ষক দরকার।’









Leave a reply