১০ টাকাতেই রক্তের সব পরীক্ষা!

|

মাত্র ১০ টাকাতেই রক্তের সব পরীক্ষার উপায় বের করেছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের একদল গবেষক।

আর এসব পরীক্ষার জন্য শরীর থেকে গোটা সিরিঞ্জ ভরে রক্ত নেয়ার প্রয়োজন হবে না।

শুধু এক বিন্দু রক্ত নিলেই জানা যাবে রক্তে হিমাটোক্রিট, হিমোগ্লোবিন, শ্বেত রক্তকণিকা, লোহিত রক্তকণিকা ও অণুচক্রিকার সংখ্যা যেমন থাকার কথা তেমনই রয়েছে, নাকি কমছে-বাড়ছে।

‘ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (আইআইটি)’-র অধ্যাপক সুমন চক্রবর্তীর নেতৃত্বে পরিচালিত ওই গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান-জার্নাল ‘বায়োসেন্সরস অ্যান্ড বায়োইলেকট্রনিক্স’-এ।

শরীরে রক্ত স্বাভাবিক রয়েছে কি না বুঝতে এই পরীক্ষাগুলোর করাতে বলেন চিকিৎসকরা। যার আদত নাম- ‘কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট (সিবিসি)’।

তাতে দেখা হয়, রক্তে যে পরিমাণে হিমাটোক্রিট, হিমোগ্লোবিন, আরবিসি, ডব্লিউবিসি, প্লেটলেট্স থাকার কথা, তা রয়েছে কি না। ওই রক্তকণিকাগলোর পরিমাণে কমা-বাড়া বুঝেই জ্বর থেকে ক্যানসার সব ক্ষেত্রেই পরবর্তী পদক্ষেপ করেন চিকিৎসকরা।

খরচটা বেশি পড়ে কারণ, প্যাথলজিক্যাল ল্যাবরেটরিগুলোতে যে সব অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে সেই সব পরীক্ষা করা হয়, সেগুলো বেশ দামি। তাদের বলা হয়, ‘সেন্ট্রিফিউজ’। তাদের রক্ষণাবেক্ষণের খরচও কম নয়। সেই পরীক্ষাগুলো করার জন্য প্রশিক্ষিতদের নিয়োগ করতে হয়।

সেই ব্যয়ভারও যথেষ্টই। তা ছাড়া প্যাথলজিক্যাল ল্যাবরেটরির সেন্ট্রিফিউজ যন্ত্রগুলো আদৌ পোর্টেবল নয়। সেগুলোকে সহজে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া যায় না।

প্রধান গবেষক, খড়্গপুরের আইআইটি-র মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক সুমন চক্রবর্তী বলেছেন, ওই সব খরচ কমাতেই আমরা এই পদ্ধতির উদ্ভাবন করেছি। শুধু তাই নয়, আমাদের বানানো যন্ত্রটি পোর্টেবল। খুব হাল্কা। একটা কম্পিউটার সিডির মতো। আমাদের পদ্ধতিতে রক্তের ওই সব পরীক্ষা করাতে খরচ পড়বে বড়জোর ১০টাকা। প্যাথলজিক্যাল ল্যাবরেটরিতে যে পরীক্ষাগুলো করতে এখন খরচ হয় ২৫০/৩০০ টাকা। আর একটু নামীদামি ল্যাবে সেই সব পরীক্ষা করানোর খরচ পড়ে ৫০০ টাকা বা তারও বেশি।









Leave a reply