কলাভবনের সামনে ছিনতাইকারীদের কবলে ঢাবি অধ্যাপক

|

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের সামনের রাস্তায় ছিনতাইকারীদের কবলে পড়লেন বিশ্ববিদ্যালয়েরই এক শিক্ষক। ভুক্তভোগী আইন বিভাগের অধ্যাপক হাফিজুর রহমান কার্জন জানিয়েছেন, আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে তার রিকশাকে ছিনতাইকারীরা ঘিরে ধরেছিলো। পরে তার কাছে তেমন কিছু না পেয়ে সটকে পড়ে অপরাধীরা।

অধ্যাপক কার্জন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার সংলগ্ন আবাসিক এলাকায় আমার বাসা। সেখান থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ক্লাবে যাচ্ছিলাম। রিকশায় করে টিএসসি হয়ে যখন কলাভবনের সামনের বড় রাস্তায় এলাম, তখন পেছন থেকে একটি রিকশা এসে আমার রিকশার সামনে থামলো। আমার রিকশাটি তখন থামতে বাধ্য হলো। তখন তাগড়া এক যুবক লাফ দিয়ে ওই রিকশা থেকে নেমে আমার রিকশার পাশে এসে দাঁড়ালো।

“আমার হাঁটুর ওপর হাত রেখে জিজ্ঞেস করলো, “আপনি সলিমুল্লাহ না? আপনার বাসা আজিমপুরে না?”, বলেন অধ্যাপক হাফিজুর রহমান।

“না, আমি সলিমুল্লাহ হতে যাবো কেন? আমি এই বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক। আমার বাসা আজিমপুর নয়।” অধ্যাপক কার্জ এইটুকু বলার পর যুবকটি বলে ওঠে, “আমরা খারাপ লোক, স্যার। যা আছে দিয়ে দেন, স্যার।”

এরপর রাস্তার ওপর পাশ থেকে আরও একটি ছেলে এসে তার রিকশার পাশে দাঁড়ায় বলে জানান ঢাবি শিক্ষক। নতুন ছেলেটি বলে, “আপনার কাছে ৫ হাজার টাকা আছে। দিয়ে দেন।”

তিনি টাকা নিয়ে বের হননি এ কথা বলার পর আর কথা না বাড়িয়ে চলে যায় ছিনতাইকারীরা। অধ্যাপক কার্জন বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়েরই শিক্ষক পরিচয় পেয়ে বোধয় তারা কিছুটা থতমত খেয়ে গিয়েছিলো। তিনি আরও বলেন, তার বদলে কোনো মহিলা বা বয়স্ক মানুষ হলে হয়তো ছিনতাইকারীরা আরও আগ্রাসী আচরণ করতে পারতো।

“২৮ বছরের এই বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনে এমন ঘটনার মুখোমুখি হতে হয়নি। কলাভবনের সামনে এমন ঘটনায় আমি হতভম্ব”, আক্ষেপ করে বলে তিনি।

জানিয়েছেন, ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে বিষয়টি জানিয়েছেন। আগামীকাল থানায় অভিযোগ দেবেন।









Leave a reply