লিঁওকে উড়িয়ে দিয়েই শেষ আটে বার্সেলোনা

|

লিওনেল মেসির নৈপূন্যে অলিম্পিক লিঁওকে ৫-১ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ৮ নিশ্চিত করেছে বার্সেলোনা। আর বিগ ম্যাচে সাদিও মানের কল্যানে বায়ার্ন মিউনিখকে ৩-১ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টর ফাইনালের টিকেট পেয়েছে ইংলিশ জায়ান্ট লিভারপুল।

প্রথম লেগের ম্যাচে গোল শুন্য ড্র করায় কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিতের মিশনে নু ক্যাম্পে জয়ের বিকল্প ছিল না বার্সেলোনার। শুরু থেকে আধিপত্য ধরে রাখে বার্সেলোনা। ম্যাচের ১৭ মিনিটে লুইস সুয়ারেজকে বাজে ভাবে ট্যাকেল করলে পেনাল্টি পায় স্বাগতিকরা। স্পিট কিক থেকে দলকে লিড এনে দেন দলীয় আধিনায়ক লিওনেল মেসি।

৩১ মিনিটে ফিলিপে কুটিনহোর গোলে ব্যবধান দ্বিগুন করে বার্সা। তবে মাথায় চোট পাওয়া লিঁও গোলরক্ষক অঁতনি লোপেজ মাঠ ছাড়েন ৩৪ মিনিটে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে লুকা তুজার কল্যানে ১ গোল শেধ করে লিঁও। ৭৮ মিনিটে মেসির দ্বিতীয় গোলে ব্যবধান ৩-১ করে বার্সা। কিছুক্ষণের মধ্যে জেরার্ড পিকের গোলে ৪-১ এর লিগ নেয় কাতালান জায়ান্টরা। আর লিঁওর কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন উসমান ডেম্বেলে। দুই লেগ মিলে ৫-১ গোলের জয়ে টানা ১৬ মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ৮ নিশ্চিত বার্সেলোনার।

এদিকে আলিয়াঞ্জ এরেনায় হাইভোল্টেজ ম্যাচে বায়ার্ন মিউনিখের আতিথ্য নেয় লিভারপুল। প্রথম লেগে গোল শুন্য হওয়ায় এই ম্যাচে জয়ের বিকল্প ছিল না দু দলের। ম্যাচের ২৬ মিনিটে ফন ডিকের বাড়ানো বলে লিড এনে দেন লিভারপুল তারকা সাদিও মানে। তবে কিছুক্ষণের মধ্যে জোয়েল মাতিপের গোলে সমতায় ফেরে স্বাগতিক বায়ার্ন। ফন ডিকের গোলে দ্বিতীয়ার্ধের ১৪ মিনিটে আবারও লিড নেয় লিভারপুল।

আর ৮৪ মিনিটে মোহমেদ সালাহ’র অ্যাসিস্ট থেকে দলকে ৩-১ গোলের লিড এনে দেন দ্বিতীয় গোল করা সাদিও মানে। এই জয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করল লিভারপুল। আর ২০১০-১১ মৌসুমের পর প্রথম বারের মত লিগের শেষ ১৬ থেকে বিদায় বাভারিয়ানদের।









Leave a reply