ইরানের শাসনব্যবস্থায় পরিবর্তন চাই না: ট্রাম্প

|

পরমাণু ইস্যুতে ইরানের সঙ্গে চলমান টানাপোড়েনে শান্তির বার্তা দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, ইরানে শাসনব্যবস্থায় পরিবর্তন চায় না যুক্তরাষ্ট্র। আমরা পরমাণু অস্ত্র খুঁজে বেড়াচ্ছি না।স্পষ্ট করে বলতে চাই, আমরা ইরানকে আঘাত করতে চাই না।খবর এএফপির।

সোমবার টোকিওতে জাপানিজ প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের সঙ্গে যৌথ প্রেস কনফারেন্সে ইরান-যুক্তরাষ্ট্রের চলমান সংকটের প্রসঙ্গ এলে এসব কথা বলেন তিনি।

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ইরানে বহু লোক আছে, যারা শান্তি চায়।আমার বিশ্বাস বর্তমান নেতৃত্বের অধীনেই ইরানিদের মহান জাতি হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

পারস্য উপসাগরে যখন মার্কিন সামরিক উপস্থিতি বাড়ছে, তেহরানকে উদ্বিগ্ন করতে সক্ষমতা দেখানো হচ্ছে, তখন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এ মন্তব্য ভিন্ন ইঙ্গিত দিল।

ট্রাম্প বলেন, অনেক সমালোচনার পরও তিনি এখনও বিশ্বাস করেন তার দেশ তেহরানের সঙ্গে একটি চুক্তি করবে, এমনটি তিনি স্পষ্টও করেছেন।

চারদিনের সরকারি সফর করতে মার্কিন এ নেতা জাপানে অবস্থান করছেন। সেখানে ট্রাম্পকে ওয়াশিংটন এবং তেহরানের মধ্যে মধ্যস্থতা করার প্রস্তাব দেয় জাপান। শিনজো আবে ট্রাম্পের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন।

এ প্রসঙ্গে ট্রাম্প বলেন, প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ইতোমধ্যেই ওয়াশিংটন এবং তেহরানের মধ্যে মধ্যস্থতা করার কথা বলেছেন এবং আমি বিশ্বাস করি ইরান জাপানের এই কথা পছন্দ করবে। আর ইরান যদি এ কথা পছন্দ করে, তাহলে আমরাও করবো।

তবে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, যদিও ট্রাম্প শান্তির কথা বলছেন, কিন্তু ইরানের সঙ্গে ‘যুদ্ধের বার্তা’ হিসেবে মধ্যপ্রাচ্যে অস্ত্র এবং সামরিক সদস্য পাঠানো তিনি বন্ধ করছেন না। জাপানে যাওয়ার আগেও পারস্য উপসাগরে আরও দেড় হাজার সৈন্য পাঠিয়ে তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তুতি হিসেবে ‘তুলনামুলক ছোট’ পদক্ষেপ এটি। এছাড়া তার নির্দেশে পারস্য উপসাগরে অবস্থান করছে মার্কিন এয়াক্রাফট বাহক স্ট্রাইক গ্রুপ, বি-২৫ বোমা হামলার দ্রুততম স্থাপনাসহ বড় ধরনের সামরিক শক্তি।









Leave a reply