বিশ্বকাপের দুর্ভাগা ক্রিকেটাররা

|

বিশ্বকাপে নাকি কাঁপে বিশ্ব। যদিও পৃথিবীর আনাচে কানাচে অনেক প্রান্তেই ক্রিকেট এখনও সেভাবে আলোচিত হয়না। কিন্তু ২২ গজের এই যুদ্ধ ঠিকই ঝড় তোলে ক্রিকেট বিশ্বে।

ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় এই উৎসবে ব্যাটে-বলে যাদু দেখান খেলোয়াড়রা। তবে এই মঞ্চে যেমন চমক আছে, তেমনি হতাশার গল্পও আছে। অনেক খেলোয়াড়ই বিশ্বকাপের চুড়ান্ত পর্বে উঠেও দুর্ভাগ্যের কারণে ছিটকে পড়েন টুর্নামেন্ট থেকে। শেষ মুহুর্তে এসে তাদের আর ছোঁয়া হয়না কাঙ্খিত ট্রফি। আজ জানা যাক তাদের সম্পর্কে-

বিশ্বকাপ ইতিহাসের সবচেয়ে দুর্ভাগা খেলোয়াড়দের তালিকায় সবার আগে আসবে গ্রাহাম গুচের নাম। যে রেকর্ড তিনি করে রেখে গেছেন তা আর কোনো ক্রিকেটারের নেই। একমাত্র দল হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠে তিনটিতেই হারের স্বাদ পেয়েছে ইংল্যান্ড। তিনবারই দলে ছিলেন এ রকম খেলোয়াড় মাত্র একজন, গ্রাহাম গুচ। এর মধ্যে এক বিশ্বকাপে ছিলেন দলের অধিনায়ক, আরেকটিতে হয়েছিলেন টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক।

উইন্ডিজের কিংবদন্তি এক ক্রিকেটারের নাম ব্রায়ান লারা। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে তিন বারে দেড়শ’র উপরে রান করেছেন তিনি। কিন্তু এখন পর্যন্ত এই ক্রিকেটার জেতেনি কোনো বিশ্বকাপ।

দক্ষিণ আফ্রিকার কিংবদন্তি ক্রিকেটাদের তালিকায় থাকা অন্যতম নাম এবি ডি ভিলিয়ার্স। ওয়ানডে ক্রিকেটে দ্রুততম শতক ও দেড়শো রান করার মালিক তিনি। বর্তমান প্রজন্মের অনেকের আইডল এই ক্রিকেটারের নামের পাশে নেই কোনো বিশ্বকাপ।

ওয়ানডে ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা এক অলরাউন্ডের ক্রিকেটারের নাম জ্যাক ক্যালিস। ব্যাট হাতে দশ হাজার রান ও বল হাতে ২৫০ উইকেটে থাকা দুইজন ক্রিকেটারের একজন এই ক্যালিস। কিন্তু কিংবদন্তি এই ক্রিকেটার একবারও ছুঁয়ে দেখেননি বিশ্বকাপ।

ওয়ানডে বিশ্বকাপে টানা চার ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানো একমাত্র ক্রিকেটার কুমার সাঙ্গকারা। শচীন টেন্ডুলকারের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ওয়ানডে রান সংগ্রাহক থেকে ক্যারিয়ার শেষ করেছেন এই কিংবদন্তি। শ্রীলঙ্কার এই ক্রিকেটার ২০০৭ ও ২০১১ বিশ্বকাপের ফাইনাল খেললেও জিততে পারেননি ট্রফি।

আরেক ইংলিশ কিংবদন্তি স্যার ইয়ান বোথাম। কিন্তু এই কিংবদন্তী অলরাউন্ডারে নামের সাথে নেই কোনো বিশ্বকাপ জয়। ১৯৭৯ এবং ১৯৯২ বিশ্বকাপে ফাইনাল খেলেও শিরোপা থেকে বঞ্চিত হতে হয় তাঁকে।

‘চোকার্স’ খ্যাত দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটার ল্যান্স ক্লুজনার। প্রোটিয়া এই কিংবদন্তি ১৯৯৯ বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটার হিসেবেনির্বাচিত হয়েছিলেন। কিন্তু তাঁর দল থেমে গিয়েছিল বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল পর্যন্তই। ক্যারিয়ারে তাঁর একমাত্র অপূর্ণত বিশ্বকাপ জয়।

ভারতের ক্রিকেটকে নতুন দিগন্তে নিয়ে গিয়েছেন সৌরভ গাঙ্গুলি। বিশ্বকাপে এক হাজার রানের মালিক খেলেছেন তিন বিশ্বকাপ। যার মধ্যে ২০০৩ বিশ্বকাপে অধিয়ানায়কত্ব দিয়ে ও ব্যাট হাতে ফাইনালে তুলেছিলেন ভারত দলকে। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে ফাইনাল জেতা হয়নি এই কিংবদন্তির।









Leave a reply