চুয়াডাঙ্গায় জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

|

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক ও চুয়াডাঙ্গা জেলা জজ কোর্টের এপিপি অ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম শফিকে উপর্যপুরী কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে শহররের রেলবাজার এলাকায় তার ওপর এ হামলা চালানো হয়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, চুয়াডাঙ্গা শহরের রেল পাড়ার মৃত ইউসুফ আলীর ছেলে আওয়ামীলীগ নেতা ও আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক এ্যাড. শফিকুল ইসলাম শফি রাতে শহরের রেল বাজার এলাকার একটি চায়ের দোকানে বসে গল্প করছিলেন। এ সময় ৮/১০ জনের একটি দূর্বৃত্তদল ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে উপর্যপুরী কোপাতে থাকে। এক পর্যায়ে এ্যাড শফিকুল মাটিতে লুটিয়ে পড়লে দূর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে দ্রুত উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের সার্জারী কনসালটেন্ট ডা. ওয়ালিউর রহমান নয়ন জানান, ধারালো অস্ত্রের উপর্যপুরী কোপে আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাড. শফির পিঠে ঘাড়ে ও পেটে মারাক্তক জখম হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। ধারালো অস্ত্রের কোপে তার ভুঁড়ি বের হয়ে গেছে। আমরা প্রায় দুই ঘন্টা অস্ত্রপচারের পর প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকাতে রেফার করা হবে।

এদিকে, আওয়ামীলীগ নেতা এ্যাড শফিকে কুপিয়ে জখমের ঘটনায় হাসপাতালে দ্রুত ছুটে যান পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আশাদুল হক বিশ্বাস, পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু ও জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দারসহ দলীয় নেতাকর্মিরা।

চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আশাদুল হক বিশ্বাস এ্যাড. শফির ওপর হামলাকে নাক্কারজনক উল্লেখ করে বলেন, অবিলম্বে হামলাকারীদেরকে গ্রেফতার করতে হবে। অন্যথায় শান্ত চুয়াডাঙ্গা অশান্ত হলে দায় প্রশাসনকে নিতে হবে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহ্বায়ক ও পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু হামলাকারীদেরকে জেলার চিহ্নিত সন্ত্রাসী বলে দাবি করেন। তিনি হুশিয়ারী উচ্চারন করে বলেন হামলা করে আর চুয়াডাঙ্গাতে রাজনীতি করা যাবে না। তিনি দ্রুত হামলাকারীদের গ্রেফতার দাবি করেন।

চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম হামলার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, হামলাকারীরা যত শক্তিশালী হোক তাদেরকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে। হামলার সাথে জড়িত সন্দেহে ৪ জনকে আটক করা হয়েছে বলে গণমাধ্যমকর্মিদের নিশ্চিত করেন তিনি।

এদিকে, আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতা এ্যাড. শফির ওপর হামলার প্রতিবাদে রাতেই চুয়াডাঙ্গা শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও কৃষকলীগ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মিরা। তারা এ ঘটনায় ছাত্রলীগের চিহ্নিত একটি গ্রুপকে হামলার জন্য দায়ী করে শ্লোগান দেন।









Leave a reply