জামিনে মুক্তি পাচ্ছেন আপন জুয়েলার্সের দুই মালিক

|

অর্থপাচার মামলায় আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ ও তার দুই ভাইকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। পাসপোর্ট জমা রাখার শর্তে তাদের জামিন দেয়া হয়।

আজ সোমবার সকালে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি আবদুল ওয়াহাব মিয়ার নেতৃত্বে পাঁচ বিচারকের আপিল বেঞ্চ জামিন বাতিলে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদন খারিজ করে দেন। এর ফলে তিনজনকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন আপিল বিভাগে বহাল থাকলো।

তবে জামিনের পর তিন ভাইয়ের মধ্যে আজাদ আহমেদ ও গুলজার আহমেদ ছাড়া পেলেও দিলদার আহমেদের নামে অন্য মামলা থাকায় আপাতত মুক্তি পাচ্ছেন না তিনি।

হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে চেম্বার বিচারপতি তিনজনকে দেওয়া জামিন স্থগিত করেছিলেন। পরে ওই স্থগিতাদেশের মেয়াদ বাড়ান আপিল বিভাগ। সর্বশেষ ২ জানুয়ারি আপিল বিভাগ ওই স্থগিতাদেশের মেয়াদ ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত বাড়িয়ে রাষ্ট্রপক্ষকে এই সময়ের মধ্যে নিয়মিত লিভ টু আপিল করতে বলেন। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ নিয়মিত লিভ টু আপিল করে, যার ওপর আজ শুনানি হয়।

গত বছর বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগের ঘটনায় আপন জুয়েলার্সের নাম সামনে আসে। ওই ঘটনায় করা মামলায় আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে শাফাত আহমেদসহ পাঁচজনকে আসামি করা হয়।

গত ৪ জুন শুল্ক বিভাগ আপন জুয়েলার্সের ডিএনসিসি মার্কেট, উত্তরা, মৌচাক, সীমান্ত স্কয়ার ও সুবাস্তু ইনম শাখা থেকে প্রায় ১৫ মণ সোনা ও ৪২৭ গ্রাম ডায়মন্ড জব্দ করার পর তা রাষ্ট্রীয় অনুকূলে বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা রাখা হয়। পরে দিলদার আহমেদ সেলিম এবং তার দুই ভাই গুলজার আহমেদ ও আজাদ আহমেদের বিরুদ্ধে কর মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগ পৃথক ৫টি মামলা করে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।









Leave a reply