চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে দুই সেবিকাকে মারধরের অভিযোগ রোগীর স্বজনের বিরুদ্ধে

|

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি :

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে দুই সেবিকাকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে এক রোগীর স্বজনের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার রাত পৌনে ৮টার দিকে শিশু ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী সেবিকা চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাতে শিশু ওয়ার্ডের ডিউটি করছিলেন সেবিকা রেহানা আক্তার ও রেশমা আক্তারসহ কয়েকজন নার্স। এ সময় ওই ওয়ার্ডের ১১ নম্বর শয্যাশায়ী রোগীর পিতা জাকারিয়া হোসেন নার্সদের সাহায্য নিতে সেবিকা কক্ষে যান। এ সময় সিনিয়র স্টাফ নার্স রেহানা আক্তারকে খুঁজে না পেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে সেবিকা রেশমা আক্তারকে মুখে ঘুষি মারে জাকারিয়া। কিল ঘুষির এক পর্যায়ে তিনি সেবিকা কক্ষ থেকে বেরিয়ে পড়ে। পরে দায়িত্বরত সিনিয়র স্টাফ নার্স রেহানা আক্তার বিষয়টি জানতে রোগীর ওই স্বজনের কাছে গেলে তাকেও মারতে উদ্যত হয়।

থানায় লিখিত অভিযোগে সেবিকা রেহানা আক্তার উল্লেখ করেন, ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অন্য একটি রোগীর সেবায় ব্যস্ত ছিলেন তিনি। এরই মধ্যে তার খোঁজে গিয়ে না পেয়ে সেবিকা কক্ষে থাকা আরেক সেবিকা রেশমাকে কিল ঘুষি মারে অভিযুক্ত জাকারিয়া। পরে মারধরের বিষয়টি জানতে গেলে তাকেও ঘুষি মারতে যায় জাকায়িরা।

এ ঘটনার পর সিভিল সার্জন এএসএম মারুফ হাসানসহ হাসপাতাল ও জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা শিশু ওয়ার্ডে জড়ো হতে থাকে। সেখান থেকে থানায় অভিযোগসহ দায়ের করা ও আন্দোলনের আভাসও পাওয়া যায়।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, এ ঘটনায় ভুক্তভোগী একজন থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। পরবর্তীতে তদন্তের পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইউএইচ/









Leave a reply