সাকিবের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে এগিয়ে বাংলাদেশ

|

ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে ৮৮ রানে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়াকে প্রথম ইনিংসে ২১৭ রানে বেঁধে ফেলে ৪৩ রানের লিড পায় টাইগাররা। দিনশেষে সৌম্য সরকারের উইকেটটি হারিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে দলের সংগ্রহ ৪৫ রান।

৩ উইকেটে ১৮ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করে সতর্কতার সাথে ব্যাট করছিলেন আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান রেনশ এবং স্মিথ। শুরুতেই মিরাজকে দিয়ে আক্রমণ শানিয়েছেন মুশফিক। ফলও আসে কিছুক্ষণের মধ্যে। তার দ্বিতীয় ওভারে মিডল স্ট্যাম্পে পড়া ডেলিভারি এগিয়ে খেলতে গিয়ে মিস করে বসেন স্মিথ। মাত্র ৮ রানে সন্তুষ্ট থেকে মাঠ ছাড়তে হয় অজি অধিনায়ককে। অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ তখন ৩৩ রান।

লড়াই শুরু করেন ম্যাট রেনশ আর পিটার হ্যান্ডসকম্ব। কয়েকবার ভাগ্যের সহায়তা পেয়ে বাড়তে থাকে এই জুটির সংগ্রহ। লাঞ্চ যখন দৃষ্টিসীমায়, তখনই আঘাত হানেন তাইজুল। ৩৩ রানে এলবিডব্লিউ’র ফাঁদে পড়েন হ্যান্ডসকম্প। কিছুক্ষণ ওপেনার রেনশকে সাকিব তার দ্বিতীয় শিকার বানালে ৬ উইকটে ১১৭ রানের দলে পরিণত হয় অস্ট্রেলিয়া। লাঞ্চ বিরতির পর ম্যাথ্যু ওয়েডকে নিজের তৃতীয় শিকারে পরিণত করেন মিরাজ। সাকিব তার তৃতীয় উইকেট পান, ম্যাক্সওয়েলকে স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার বানিয়ে।

১৪৪ রানে ৮ উইকেট ফেলে দিয়ে বাংলাদেশ যখন বড় লিডের স্বপ্ন দেখছে, তখন বাধ সাধেন কামিন্স-অ্যাগার। অবশ্য এর জন্য টাইগারদের ফিল্ডিংয়ের দায়ও কম নয়। সাকিবের বলে কামিন্স সোজা ক্যাচ তুললেও তা ধরে রাখতে ব্যর্থ হন শফিউল। চা বিরতির পর সেই সাকিবই ফেরান কামিন্সকে। ভাঙে ৪৯ রানের জুটি। এরপর আক্রমণাত্মক খেলতে শুরু করেন অ্যাস্টন অ্যাগার। কিন্তু অপর প্রান্তে থাকা হ্যাজেলউডকে সাকিব ইমরুলের ক্যাচ বানালে ২১৭ রানেই থেমে যায় অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংস। ৪১ রানে অপরাজিত থাকেন অ্যাগার।

৬৮ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। একই সাথে চতুর্থ বোলার হিসেবে টেস্ট খেলুড়ে সব দলের বিরুদ্ধে ৫ উইকেট শিকারের অনন্য অর্জন করলেন তিনি।

এর আগে প্রথম ইনিংসে ব্যাট হাতেও দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৮৪ রান করেন সাকিব। তামিমের সাথে তার ১৫৫ রানের জুটিতে ভালো পুজি গড়ে স্বাগতিকরা। ক্যারিয়ারের ২৩তম ফিফটি তুলে তামিম থামেন ৭১-এ। এরপর আর কেউ সুবিধা করতে না পারলে ২৬০ রানে শেষ হয় বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস।









Leave a reply