বিউটির ধর্ষক-খুনি বাবুল মিয়া গ্রেফতার

|

হবিগঞ্জে চাঞ্চল্যকর বিউটি ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় প্রধান আসামি বাবুল মিয়া অবশেষে গ্রেফতার হয়েছে। সিলেটের বিয়ানীবাজার থেকে তাকে আটক করেছে র‍্যাব।

শনিবার দুপুরে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করে র‍্যাব জানিয়েছে, গোপন খবরের ভিত্তিতে শুক্রবার রাতে বিয়ানীবাজারের রামদা গ্রামে অভিযান চালায় তারা। সেখানে ফুফুর বাড়িতে আত্মগোপনে থাকা বাবুলকে গ্রেফতার করা হয়। বিউটিকে হত্যার পর থেকেই সে বিয়ানীবাজারে লুকিয়ে ছিল বলে জানায় র‍্যাব।

বিউটি আক্তারকে যাতায়াতের পথে উত্ত্যক্ত করতো প্রতিবেশী ২ সন্তানের জনক বাবুল মিয়া। এনিয়ে বিউটি অভিযোগ করলে গত ২১ জানুয়ারি তাকে অপহরণ করে বাবুল। অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। অনেক মিনতির পর ৯ ফেব্রুয়ারি গুরুতর অবস্থায় বিউটিকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয় বাবুল মিয়া।

এরপর গত ১২ ফেব্রুয়ারি বিউটির বাবা সায়েদ আলী বাদী হয়ে বাবুল ও তার মা ইউপি সদস্য কলমচানকে আসামি করে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। আদালতের নির্দেশে ৪ মার্চ এ মামলা গ্রহণ করে শায়েস্তাগঞ্জ থানা পুলিশ। কিন্তু আটক করা হয়নি বাবুল মিয়াকে। উল্টো মামলা তুলে নেয়ার জন্য শুরু হয় বিউটির পরিবারকে হুমকি ধামকি।

নিরাপত্তাহীনতায় ১৩ মার্চ বিউটিকে লাখাইয়ে নানার বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু সেখান থেকে ১৬ মার্চ ফের অপহরণ করা হয় বিউটিকে। ১৭ মার্চ ব্রাহ্মণডোরা হাওরে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় উদ্ধার হয় বিউটির মৃতদেহ।

এদিকে, এমন নির্মম ঘটনায় নিহতের স্বজন ও এলাকাবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। পুলিশের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ এনেছেন স্বজনরা। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন সবাই।









Leave a reply