জাতীয় লিগে চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী

|

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ষষ্ঠবারের মতো চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী। জাতীয় লিগের ২০তম আসরে বরিশাল বিভাগকে হারিয়ে শিরোপা নিজেদের করে নিয়েছে জহুরুল ইসলাম অমির নেতৃত্বাধীন রাজশাহী বিভাগ।

এর আগে সবশেষ ২০১১-১২ মৌসুমে জাতীয় লিগের শিরোপা জিতেছিল রাজশাহী। এটি তাদের ষষ্ঠ শিরোপা। জাতীয় লিগের ২০তম আসরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ছয়টি করে শিরোপা জিতেছে খুলনা ও রাজশাহী বিভাগ।

আগে থেকেই অনুমেয় ছিল রাজশাহীর শিরোপা জয়। বাকি ছিল আনুষ্ঠানিকতা। বৃহস্পতিবার বরিশালকে ৬ উইকেটে পরাজিত করে সেই আনুষ্ঠানিকতা সেরে নেয় রাজশাহীর ক্রিকেটাররা।

রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত লিগের শেষ রাউন্ডে মোহর শেখের গতির বলে বিধ্বস্ত হয়ে প্রথম ইনিংসে ৯৭ রানে অলআউট বরিশাল বিভাগ। রাজশাহীর তরুণ পেসার মোহর ২৪ রানে নেন ৫ উইকেট।

জবাব দিতে নেমে মনির হোসেনের ঘুর্ণি বলে বিভ্রান্ত হয়ে ১৬০ রানে অলআউট রাজশাহী। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৮ রান করেন জুনায়েদ সিদ্দিকী। বরিশালের হয়ে ৫ উইকেট নেন মনির।

৬৩ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে আল-আমিনের ৯৭, শামসুল ইসলামের ৫৬ এবং নুরুজ্জামানের ৪৫ রানে ভর করে ৩৪৬ রান সংগ্রহ করে বরিশাল বিভাগ।

জয়ের জন্য চতুর্থ ইনিংসে রাজশাহীর টার্গেট দাঁড়ায় ২৮৪ রান। এমন টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে বুধবার ২ উইকেটে ১৮২ রান সংগ্রহ করে রাজশাহী। ৬৫ ও ২৫ রানে অপরাজিত থাকা জুনায়েদ সিদ্দিকী ও জহুরুল ইসলাম বৃহস্পতিবার ফের ব্যাট করতে নামেন।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে ১৪৯ রান যোগ করে ফেরেন জহুরুল ইসলাম অমি। তার আগে ১০৮ বলে পাঁচ চার ও তিন ছক্কায় ৬৪ রান করেন রাজশাহীর এই অধিনয়াক। তবে দুর্দান্ত খেলে যাওয়া জুনায়েদ সিদ্দিকী ১৮১ বলে ১৭ চারের সাহায্যে ১২০ রানের লড়াকু ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন। চতুর্থ ইনিংসে অসাধারণ খেলার সুবাদে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন জাতীয় দলে ‘সাবেক’ হয়ে যাওয়া এই টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান।









Leave a reply