ঢাবিতে আজও ককটেল বিস্ফোরণ, কড়া প্রতিক্রিয়া প্রক্টরের

|

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনের সামনে আজ আরও ২টি ককটেল বিস্ফোরণ হয়েছে। এ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ৬টি ককটেল বিস্ফোরণ হলো। আর পাঁচ দিনের ব্যবধানে তিন দিন ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটলো। এদিকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিনষ্ট করতে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হচ্ছে দাবি করেছেন প্রক্টর গোলাম রব্বানী।

একের পর এক ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় এখনো জড়িতদের কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি প্রশাসন।

প্রক্টর একেএম গোলাম রাব্বানী বলেন, আশেপাশের ভবন থেকেই হামলা চালানো হতে পারে। এজন্য ক্যাম্পাসের রাজনৈতিক ছাত্রসংগঠনগুলোকে দায়ী করেন তিনি। বলেন, ক্যাম্পাসকে অস্থিতিশীল করতেই এই ককটেল হামলার ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। কিছু সংগঠন যারা সম্প্রতি তৈরি হয়েছে তারা ২২ ডিসেম্বরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করার চেষ্টা করছে।

গোলাম রাব্বানী বলেন, আতঙ্ক সৃষ্ট করতেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির নির্বাচনকে ঘিরে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করা হচ্ছে। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এসব অপতৎপরতা মোকাবেলা করবে।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে ‘বাক সন্ত্রাস’ ও ‘ভাষা সন্ত্রাস’ চলছে বলে মন্তব্য করেন প্রক্টর। গণমাধ্যমসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে দায়িত্বশীল আচরণ করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ডাকসুতে সংঘর্ষের ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজ কেনো প্রশাসন উদ্ধার করতে পারছে না তার জবাবে তিনি বলেন, ২২ ডিসেম্বরে বিশৃঙ্খলাকারীরাই সিসিটিভির ফুটেজ গায়েব করে দিয়েছে।

এদিকে, ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেছেন, সহাবস্থানের নামে ছাত্রদলের দুটি গ্রুপ ক্যাম্পাসে অবস্থান করছে তারা এই হামলা করে থাকতে পারে।

তবে ছাত্রদল এই অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে।









Leave a reply