রুপার মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর

|

টাঙ্গাইলে চলন্ত বাসে গণধর্ষনের ও হত্যার শিকার রূপার মরদেহ কবর থেকে তুলে তা স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অতুল মণ্ডল বেওয়ারিশ হিসেবে কবর দেয়া রুপার মরদেহ তুলে পারিবারিকভাবে দাফনের নির্দেশ দেন। রূপার পরিবারের পক্ষে জেলা প্রশাসকের একটি আবেদনের প্রেক্ষিতে তিনি এ নির্দেশ দেন।

গত শুক্রবার রাতে মধুপুর বনের সড়কের পাশ থেকে রূপার লাশ উদ্ধার করে মধুপুর থানা পুলিশ। পরিচয় না পেয়ে অজ্ঞাত হিসেবে তার ময়নাতদন্ত শেষ করে কবর দেয়া হয়।

সোমবার রাতে মধুপুর থানায় গিয়ে জামা-কাপড় দেখে শনাক্ত করে তরুণীর স্বজনরা। পরিচয় শনাক্ত হওয়ার পর তার তথ্যর ভিত্তি করে অভিযান শুরু করে পুলিশ। বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে ওই বাসের চালকসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

তাদের জবানবন্দি থেকে জানা যায় ছোঁয়া পরিবহনের একটি বাসে করে শুক্রবার রাতে সিরাজগঞ্জ থেকে ময়মনসিংহ যাচ্ছিলেন ওই তরুণী। পথে তাকে নির্যাতনের পর হত্যা করা হয়।









Leave a reply