হিজাবী মুসলিম ছাত্রীকে স্কুলের বাথরুমে ফেলে মারধর

|

স্কুলের বাথরুমে হিজাব পরিহিত এক ছাত্রীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি চলছে আর এক ছাত্রীর। হঠাত্ই দ্বিতীয় ছাত্রীটি মারতে শুরু করল হিজাব পরিহিত ছাত্রীটিকে। উদ্বাস্তু ওই মুসলিম ছাত্রীটি বারবার ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ জানালেও কর্ণপাত না করেই গালাগালি দিয়ে এলোপাথাড়ি ঘুঁষি চালাতে থাকে ওই ছাত্রীটি। এ রকমই একটি ভিডিও সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমে।

ঘটনাটি ঘটেছে আমেরিকার পিটসবার্গের চার্টিয়েস ভ্যালি হাইস্কুলে। গোটা ঘটনার ভিডিও করেছে ওই স্কুলেরই অন্য একজন ছাত্রী।

ঘটনাটি সামনে আসতেই শুরু হয়েছে সমালোচনা। কাউন্সিল অন আমেরিকান-ইসলামিক রিলেশনস এই ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তের জন্য ফেডেরাল অফিসারদের অনুরোধ জানিয়েছে। ওই ছাত্রীটিকে আইনি সাহায্য করার কথাও জানিয়েছে কাউন্সিল। হিজাব পরিহিত ছাত্রীটি পরিবারের সাথে দু’বছর সিরিয়ার উদ্বাস্তু শিবিরে থাকার পর সম্প্রতি আমেরিকায় পৌঁছায়।

ঘটনা জানাজানির পরই চার্টিয়েস ভ্যালি স্কুল ডিস্ট্রিক্টের তরফে জারি করা বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘চার্টিয়েস ভ্যালি স্কুল ডিস্ট্রিক্ট কোনও ধরনের হিংসার ঘটনাকে বরদাস্ত করবে না। ডিস্ট্রিক্ট সকল ছাত্রছাত্রীদের জন্য নিরাপত্তা ও স্কুলে শিক্ষার উপযুক্ত পরিবেশ বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর।’ ছাত্রীটিকে আপতত তিনদিনের জন্য স্কুল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তদন্তের পর পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানানো হয়।

যদিও পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, ‘জাতিগত বিদ্বেষের সঙ্গে এই ঘটনার কোনও যোগ নেই। এটা একটা সাধারণ নিগ্রহের ঘটনা। যদিও ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত আমরা করব।’

অভিযুক্ত ওই ছাত্রীটি এর আগেও এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানা গেছে।









Leave a reply